আত্মহনন: যখন গণমাধ্যম নিজেই ‘মুনিয়া’

গণমাধ্যমের ব্যর্থতার কথা কি আপনাদের মনে হচ্ছে শুধু মুনিয়া বিষয়ে? না, এরচেয়ে ভয়াবহ ব্যর্থতা রয়েছে গণমাধ্যমের। বিবিসি জানালো লাউড এন্ড ক্লিয়ার, আমাদের দ্বিতীয় দফার জন্য অ্যাস্ট্রা-জেনেকা’র টিকার ১৩ লক্ষ ডোজ ঘাটতি রয়েছে। প্রথম ডোজ দেয়া তো বন্ধই। এতটা লাউড এন্ড ক্লিয়ার আমাদের দেশের কোনো গণমাধ্যম কি জানিয়েছে? জানিয়েছে, টিকার জন্য অ্যামেরিকা-ইউরোপের কাছে হাত পাততে হচ্ছে আমাদের? জানায়নি। অন্তত আমার চোখে সেভাবে পড়েনি।

টিকা কেনার জন্য অগ্রিম টাকা দিয়েছি আমরা। টিকা কাজ করবেন কী করবে না, সেটাও যখন পুরোপুরি নিশ্চিত নয়, তা সত্বেও আমরা টিকা উৎপাদনে খরচ জুগিয়েছি। স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি দাম দিয়েছি। তারপরেও ভারতের সেরাম আমাদের টিকা দিচ্ছে না। ওদের দেশেরগুলো মানুষ, আর আমাদেরগুলো গরু-ছাগল! আমাদের একশ্রেণির আতেল আবার এ নিয়ে সাফাই গাইছেন, সাথে গাইছেন মানবতার গান। এই বেকুব শ্রেণিটাকে নিয়ে হয়েছে মহামুশকিল। তাদের অবস্থা হয়েছে ইয়ে’র মতন, ‘প্রয়োজনে শিথিল, অপ্রয়োজনে খাঁড়া’। এরা হলো সেই পরকিয়া পার্টি, পরস্ত্রীর প্রতি যাদের টান বেশি। ‘একটি প্রতিষ্ঠিত শিল্প গোষ্ঠীর’ বেনামী এমডি’র মতন। টিকার জন্য আমরা যে আরেকটা ‘গোষ্ঠী’র কাছে পুরো জাতির জান-জীবন বন্ধক রেখেছি তা তাদের চোখে পড়েনি!

সরকার বুঝতে পারছে পরিস্থিতি কতটা জটিল। দেরিতে হলেও তারা চেষ্টা করছে। এতদিনের বন্ধুত্বকে প্রশ্নের সম্মুখিন করেই চীনের নেতৃত্বাধীন টিকা জোটে যোগ দিয়েছে। ভারতের মতন ‘পরীক্ষিত’ বন্ধুকে ডিঙিয়ে সরকারের এই জোট করার পরও যাদের আক্কেল হয় না, তারা বুদ্ধি প্রতিবন্ধী। আমাদের অনেক গণমাধ্যমও তার বাইরে নয়। না হলে এসব নিয়ে মাধ্যমগুলো কেন ভোকাল নয়! কেন প্রশ্ন তোলেনি, তুলছে না! যার সাথে দেশের মানুষের জীবন-মৃত্যুর প্রশ্ন জড়িত।

যারা এক মুনিয়া’র ব্যাপারে গণমাধ্যমের ব্যর্থতাকে সামনে আনছেন, তাদের স্পর্শকাতরতা একটু কম। ওই যে, গণ্ডারের মতন, চুলকানি টের পেতে যার পনেরো দিন লাগে। গণমাধ্যমের পতন শুরু ২০০১ থেকেই। একটা অপগণ্ড শ্রেণি ইঁদুরের মতন তলে তলে কাটছিলো গণমাধ্যমকে। ২০২১ এসে তা পুরো তলাবিহীন। অবস্থা এমন হয়েছে গণমাধ্যম কোন বিষয়ে সত্য বললেও মানুষ তা সন্দেহের চোখে দেখে। যে কারণে নাঈমুল ইসলাম খানের মতন একজন সম্পাদককে দুঃখ প্রকাশ করতে হয়, লজ্জিত হতে হয় মুনিয়া বিষয়কে উপলক্ষ্য করে গণমাধ্যমকাণ্ডে।

এক কান কাটা হলে দূর দিয়ে যায়, দুই কান কাটা গেলে যায় পথের মধ্যে দিয়ে। কিছু গণমাধ্যম তেমনি পথের মধ্যে দিয়ে চলছে। কিছু এখনো দূর দিয়ে যাচ্ছে। যারা পথের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে, তাদের মধ্যেও প্রতিযোগিতা রয়েছে কে কতটা মধ্যে দিয়ে যেতে পারে। এদের অবস্থা দাঁড়িয়েছে ‘মেরেছে কলসের কানা তাই বলে কী প্রেম দেব না’ এমনটা। এদের নির্লজ্জতায় চরম লজ্জাহীনরাও মনে মনে বিব্রত হচ্ছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের একটি প্রভাবশালী গণমাধ্যমের এক সাংবাদিককে যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে মিথ্যে খবর লেখার জন্য ম্যানেজমেন্ট থেকে বলা হয়েছিলো। তিনি লিখেছিলেনও। সেই খবর প্রকাশিত হয়েছিলো মাধ্যমের প্রিন্ট এবং অনলাইন ভার্সনেও। কিন্তু সেই সাংবাদিক বিদ্ধ হচ্ছিলেন বিবেকের দংশনে। তিনি সইতে না পেরে বিষয়টি জানিয়ে ওই মাধ্যম থেকে পদত্যাগ করেছিলেন। আর সেই মাধ্যমটি বাধ্য হয়েছিলো এ বিষয়ে সেই সাংবাদিকের ‘নোট’ ছাপতে। এটা হলো সাংবাদিকতা। যার দায়বদ্ধতা থাকে নিজ বিবেকের কাছে।

জানি, বলবেন, আমাদের দেশের সাংবাদিকরা চাকরি ছেড়ে দিলে খাবে কী? এর উত্তর হলো, ছা-পোষাদের নয় চাকরি ছেড়ে দিলে খাবার জুটবে না, কিন্তু ‘পোষা’দের? তাদের কারো কারো যে পরিমান সহায়-সম্পদ রয়েছে তা দিয়ে এক জনম কেন, আরো কয়েক জনম বসে খাওয়া যাবে। তাদের কয়েকজন সাহস করে এগিয়ে এলেই তো পুরো গণমাধ্যম বেঁচে যায়। গণমাধ্যমকে ক্রমশ আত্মহননের দিকে যেতে হয় না। না, যুক্তরাষ্ট্রের সেই সাংবাদিকের পথে না গিয়ে তারা চলেছেন উল্টো পথে। উল্টো গণমাধ্যমকে আত্মহত্যার প্ররোচনা দিয়ে চলেছেন প্রতিনিয়ত। তাদের প্ররোচনায় পুরো গণমাধ্যমই এখন একজন ‘মুনিয়া’ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

লেখক পরিচিতি

কাকন রেজা
সাংবাদিক ও কলাম লেখক।

Get in Touch

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

আরও পড়ুন

হোর্হে লুইস বোর্হেস-এর কবিতা

হোর্হে লুইস বোর্হেস-এর এ-কবিতাগুলি ১৯২৩ সালে প্রকাশিত প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘ফের্বোর দে বুয়েনোস আইরেস’ (বুয়েনোস আইরেসের জন্য ব্যাকুলতা)-এ অন্তর্ভুক্ত

অমৃতলোকের কথাশিল্পী সেলিনা হোসেন

অনন্য কথাশিল্পী সেলিনা হোসেন, একাত্তরের বাঙালির ভয়াল দিন-রাত্রিতে আপনি ছিলেন ঢাকা শহরের অধিবাসি হয়ে। দু’চোখে দেখেছেন জল্লাদ রক্তপিপাসু পাকিস্তানীদের রক্ত উল্লাস। উদ্যত রাইফেল আর মেশিনগানের মুখে গোটা বাংলাদেশ নেতিয়ে পড়েছিল

পেন পিন্টার প্রাইজ পেলেন জিম্বাবুয়ের ঔপন্যাসিক

তার সর্বশেষ প্রকাশিত উপন্যাস ‘দিস মউর্নঅ্যাবল বডি’ গত বছরের বুকার পুরস্কারের লং লিস্টে জায়গা করে নিয়েছিলো। দুর্নীতি ও ভঙ্গুর অর্থনীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে গত বছর গ্রেফতার হন তিনি।

Get in Touch

সর্বশেষ প্রকাশিত